রোজা ভঙ্গের কারন

রোজা ভঙ্গের কারন প্রধানত তিনটি খাওয়া, পান করা ও স্ত্রী সহবাস। রোজা পবিত্র রমজানের সবচে গুরুত্বপূর্ণ ফরজ আমল। তাই রোজা রাখার পর সতর্ক থাকতে হয় যেন এমন কিছু না হয়, যেটার কারণে রোজা ভেঙে যায়।

তবে প্রধান তিন কারণের মধ্যে আরও অনেক রোজা ভঙ্গের কারন রয়েছে:

১. ইচ্ছাকৃতভাবে খাওয়া বা পান করা, তবে ভুলে খেলে রোজা ভঙ্গ হবে না। (ফাতওয়া শামি : ০৩/৩৭৫)

২. বিড়ি-সিগারেট পান করা (জাওয়াহিরুল ফিকাহ : ০১/৩৭৮)

৩. আমরা খারবার হিসেবে খাইনা এমন কিছু খাওয়া যেমন- কাঠ, কাগজ, পাথর, মাটি ইত্যাদি। (ফাতওয়া আল-হিন্দিয়্যা : ০১/২০২; জাওয়াহিরুল ফিকাহ  : ০১/৩৭৮)

৪. নিজের থুতু হাতে নিয়ে গিলে ফেললে। (ফাতাওয়া আল-হিন্দিয়্যা : ০১/২০২)

৫. ইচ্ছাকৃত ভাবে স্ত্রী সহবাস করলে, রোজার কথা মনে পড়লে সঙ্গে সঙ্গে সহবাস থেকে বিরত হলে রোজা ভঙ্গ হবে না (ফাতওয়া শামি : ০৩/৩৭৫)

৬. নাকে বা কানে তরল ঔষধ ব্যবহার করলে। (ইমদাদুল ফাতাওয়া : ০২/১২৭)

৭. থুতুর সঙ্গে রক্ত বের হলে, আর রক্ত থুতু থেকে বেশি হলে, তা গিলে ফেললে রোজা ভেঙ্গে যায়  (ফাতাওয়া শামি : ০৩/৩৬৭)

৮. হস্তমৈথুন করা। (ফাতাওয়া দারুল উলুম দেওবন্দ : ০৬/৪১৭)

৯. রোজা স্মরণ থাকা অবস্থায় গড়গড়া কুলি করলে রোজা ভেঙ্গে যায় (আহসানুল ফাতাওয়া : ০৪/৪২৯)

১০. কারো জোর-জবদস্তিতে পানাহার করলেও রোজা ভেঙ্গে যায়। (ফাতাওয়া হিন্দিয়্যা : ০১/২০২)

১১. সাহরি খাওয়ার সময় আছে মনে করে সাহরি খাওয়া। (জাওয়াহিরুল ফিকাহ : ০১/৩৭৮)

১২. ইচ্ছাকৃত বমি করা অথবা বমি আসার পর তা গিলে ফেললে রোজা ভেঙ্গে যায়। (ফাতহুল কাদির : ০২/৩৩৭)

১৩. ইফতারের সময় হয়ে গেছে মনে করে, ভুলে আগেই ইফতার করা। (বুখারি : ১৯৫৯)

১৪. যদি কেউ রাত মনে করে, স্ত্রী সহবাসে লিপ্ত হয়ে যায় (ফাতওয়া শামি, খণ্ড : ০৩, পৃষ্ঠা : ৩৭৪)

১৯. বৃষ্টি বা বরফের টুকরো গিলে ফেললে রোজা ভেঙে যায়। (ফাতাওয়া হিন্দিয়্যা : ০১/২০৩)

২০. ঋতুস্রাব হলে রোজা ভেঙ্গে যায়

২১. ইনজেকশন বা স্যালাইন নিলে রোজা ভেঙ্গে যায়।

২২. দাঁতে আটকে থাকা ছোলা পরিমাণ বা তার চেয়ে বড় খাদ্য-দ্রব্য গিলে ফেললে।

রোজা সম্পর্কে কুরআনের আয়াত আরবি

এখানে আমরা ২২টি রোজা ভঙ্গের কারন বর্ণনা করেছি, আল্লাহ আমাদের সবাইকে সঠিকভাবে রোজা পালনের তাওফিক দান করুন। -আমিন।

Hifz/Hafizi Quran-15 Lines